Home / STORY LESSON / সুখের নীড়ে ভালোবাসার প্রাপ্তি !!!!

সুখের নীড়ে ভালোবাসার প্রাপ্তি !!!!

মেয়ে:- আমাকে বিয়ে করবা?

ছেলে:- হুম।

Loading...

মেয়ে:-তোমাকে আমার বাবা মা মেনে নিবেনা,

ছেলে:- তাহলে আর কি সবকিছু ছেরে চলে আসতে পারবা আমার কাছে?

মেয়ে:- হুম পারবো,but কখনো কস্ট দিবানা তো?

ছেলে:- নাহ আমি তোমাকে প্রমিস করতেছি কখনো কস্ট দিবোনা, but বেশি কিছু দিতে পারবনা, আমার যতটুকু সম্ভব তা দিয়ে রাখবো, যদি পারো থাকতে তাহলে এসো।

মেয়ে:- আমি তোমাকে চাই আর কিচ্ছু বুঝিনা, এভাবে চলতে থাকে তাদের ভালোবাসার গল্প, কিছুদিন পর মেয়েকে দেখতে আসছে, ছেলে সরকারী চাকরী করে, তার বাবা মা ছেলেকে পছন্দ করলো, বিয়ের কথাবার্তা চলতেছে, মেয়ে তার বাবা- মা কে বললো তার bf এর কথা, তার বাবা মা রাজি হলোনা, তারা মেয়েটির জন্য এই পাত্রই ঠিক করলো, আজ রাতে মেহেদী আর নিহলা পালিয়ে যাবে তাদের বাবা মা কে ছেরে, তারা ঢাকা একটা বাসায় গিয়ে উঠছে, দুজন দুজনের দিকে তাকিয়ে একটা শান্তীর শ্বাস ফেললো

, মেহেদী:- তোমাকে খুব সুন্দর লাগতেছে,

নিহলা:- আরে ফালতু কথা রাখোতো, টেনশনে আছি,

মেহেদী:- আরে পাগলী টেনশনের কি আছে আমি আছিনা? দেখবা সব ঠিক হয়ে যাবে,

নিহলা:- আচ্ছা আমরা ভুল কিছু করলাম না তো?

মেহেদী:- ভুল নাকি ঠিক সেটা আমি জানিনা, কিন্তু তোমাকে হারিয়ে ফেললে আমি বাচবোনা, এটা শুনে নিহলার চোখ থেকে পানি বের হয়ে আসছে, মেহেদী: এইযে পাগলীটা আবার কান্না শুরু করছে, আসো এদিকে আসো বলে মেহেদী তার বুকে নিহলাকে জরিয়ে নিলো, দিন যাচ্ছে তাদের ভালোবাসা আরো গভীর হচ্ছে, রাতে ঘরে এসে মেহেদী নিহলা কে না দেখতে পেয়ে জোড়ে ডাকতেছে, নিহলা অন্ধকার ভয় পায়, তাই মেহেদী লাইট টা অফ করে দেয়, নিহলা আউ করে চিল্লান দিয়া দৌড়ে এসে মেহদীকে ধরে ফেলে, তারপর ও লাইট অন করে দেয়,

নিহলা: শয়তান, বান্দর, অভীমানে চোখ থেকে পানী বের হয়ে যায়,

মেহেদী: sorry জানু, তোমার এই ভয় মাখা মুখটা দেখতে খুব ভালো লাগেতো তাই এমন করলাম,

নিহলা:- হইছে আর বলতে হবেনা! (২ মাস পর) হঠাত নিহলা সেজে গুজে বসে আছে প্রীয় মানুষটির অপেক্ষায়, মেহেদী বাসায় আসলো দেরী করে, এসে দেখে কিউট বউ টা তার পছন্দের শাড়ীটা পরে বসে আছে,

মেহেদী: ওয়াও জানু কি মনে করে আজ হঠাত শাড়ী পরলা?

নিহলা: কেনো আমি কি শাড়ী পরতে পারিনা নাকি? নিষেধ আছে আমার জন্ন?

মেহেদি: নাহ সেটা না তবে শাড়ী পরা টা হয়নি, দাও আমি পরিয়ে দেই বলে মেহেদী কাছে গেলো,

নিহলা: নাহ দরকার নাই, ঠিক আছে তোমার আর লুইচচামি করতে হবেনা, যাও ফ্রেশ হয়ে আসো, রাতে খাওয়া দাওয়া শেষে,

নিহলা: আজ তোমার জন্য একটা good news আছে, মেহেদি: ওয়াও really??

নিহলা: হুম

মেহেদি :বলোনা জান কি?

নিহলা: (চোখ বন্দ করে) তুমি বাবা হবা।

মেহেদী: ওহ আমি খুব খুসী, বলো তুমি কি চাও আমার কাছে?

নিহলা: একটা ৫ টাকা দামি আইসক্রিম নিয়া আসো, দিন গুলা খুব ভালই কাটছে ওদের, (কিছুদিন পর) মেহেদী অফিসে, নিহলা দোকানে গেলো কিছু কিনার জন্য,আসার পথে একটা গাড়ী এসে নিহলা কে ধাক্কা দিয়ে রাস্তায় ফেলে দেয়, ওর পা টা ভেংগে যায়, doctor বলে নিহলা আর হাটতে পারবেনা যদীও হাটে দেরী হবে অনেক, এটা শুনে মেহেদী খুব কাননা করে, আর নিহলা কে জরিয়ে ধরে বলে পাগলী তোর কিচ্ছু হবেনা আমি আছি তোর পাশে সবসময়।

সোহেল সাইফ …..

Check Also

জঙ্গীদের প্রতি ঘৃনা বাড়ানোর বড়ি!

১) আজ মুসলমান সম্প্রদায়ের এক বড় উৎসব।আমার এধরনের লেখা ঠিক হচ্ছেনা তবু দেশের পরিস্থিতি আমাকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.