Home / HOLY FRIDAY

HOLY FRIDAY

প্রার্থনা করতে হবে শুধু আল্লাহর কাছে

আল্লাহ তাআলা সমগ্র বিশ্বের একচ্ছত্র অধিপতি। ভালো-মন্দ, বাঁচা-মরা, সন্তান দান, হালাল রিজিক দান, চাকরি ও ব্যবসা-বাণিজ্যের সুব্যবস্থা ইত্যাদি বিষয়ের একচ্ছত্র মালিক তিনি। এজন্য দুনিয়া ও পরকালের সব চাওয়া-পাওয়ার আশা করতে হবে শুধু আল্লাহ তাআলার কাছে। আল্লাহ ব্যতীত অন্য কারো কাছে কোনো কিছু প্রার্থনা করা যাবে না। কুরআনে অন্যের কাছে কোনো কিছু চাওয়াকে কঠোরভাবে নিষেধ করেছেন। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘আর নির্দেশ হয়েছে আল্লাহ ব্যতীত এমন কাউকে ডাকা যাবে না, যে তোমার ভালো কারতে পারবে না আবার মন্দও করতে পারবে না। বস্তুত তুমিও যদি এমন কাজ কর, তাহলে তখন তুমিও জালেমদের (অত্যাচারীদের) অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবে। (সুরা ইউনুছ : আয়াত ১০৬) আল্লাহ তাআলা …

Read More »

নামাজে দাঁড়ানোর তরিকা

নামাজে অনেক সুন্নত রয়েছে। তাই যেভাবে মনে চায় সেভাবে দাঁড়ানো যাবে না। কারণ দাঁড়ানোটা আমার ব্যক্তিগত ব্যাপার নয়, বরং আমি এক মহান সত্তার আদেশ পালনার্থে দাঁড়িয়েছি। আমি যদি আমার ব্যক্তিগত কাজে দাঁড়াতাম, তাহলে যেভাবে মনে চায় সেভাবে দাঁড়াতে পারতাম। আর্মিরা যখন প্রশিক্ষণের জন্য লাইনে দাঁড়ায়, তখন কি তারা নিজ ইচ্ছামতো দাঁড়ায় নাকি যিনি তাদের কমান্ড করেন তার নির্দেশ মতো দাঁড়ায়? অনেক সময় দেখা যায়, কেউ যদি বলেন, কাতার সোজা করে দাঁড়ান, তাহলে তার ওপর চটে যান এবং বলেন যে, আপনি ঠিকমতো দাঁড়ান, আমি ঠিকই দাঁড়িয়েছি। চটে যাওয়ার কারণও আছে, যিনি সোজা দাঁড়াতে বলেন, তিনি কথার মধ্যে এমন আমিত্বভাব প্রকাশ করেন …

Read More »

আল আকসা মসজিদ সম্পর্কে কিছু তথ্য

সম্প্রতি ফিলিস্তিনের আল আকসাকে মুসলমানদের পবিত্র স্থান বলে ঘোষণা করেছে ইউনেস্কো। ১৩ অক্টোবর পাসকৃত এক প্রস্তাবনায় বলা হয়, জেরুজালেমের আল আকসা মসজিদের ওপর ইসরাইলের কোনো অধিকার নেই, আল আকসা মুসলমানদের পবিত্র স্থান। এটা ঐতিহাসিকভাবে সত্য ও বিশ্বসমাজে সর্বজনবিদিত বিষয়ও। যদিও এটিকে সিনাগগ বা ইহুদি মন্দির দাবি করে ইসরাইল অন্যায় আগ্রাসন ও মানবতাবিরোধী আচরণ করে যাচ্ছে। মুসলিমদের কাছে আল আকসা মসজিদ নামে পরিচিত এই স্থাপনাটি ইহুদিদের কাছে ‘টেম্পল মাউন্ট’ নামে পরিচিত। আল আকসা বা বায়তুল মোকাদ্দাস হচ্ছে- ইসলামের প্রথম কেবলা এবং মক্কা ও মদিনার পর তৃতীয় পবিত্র স্থান। হজরত রাসূলে করিম (সা.) মক্কার মসজিদুল হারাম, মদিনার মসজিদুন্নবী ও বায়তুল মোকাদ্দাস মসজিদের …

Read More »

মিথ্যা বলার পরিণাম

ইসলামের এক গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা, মানুষের এক গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য- সত্যবাদিতা। এছাড়া একজন মুমিন পরিপূর্ণ মুমিন হতে পারে না। একজন মানুষ পূর্ণাঙ্গ মানুষ হতে পারে না। পবিত্র কোরআনে আল্লাহপাক বলেন, ‘হে ইমানদাররা! আল্লাহকে ভয় করো এবং সত্যবাদীদের সহযোগী হও।’ (সুরা তাওবা, আয়াত : ১১৯)। ইসলামি শরিয়তে মিথ্যা বলা সম্পূর্ণ নিষেধ। আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মিথ্যা পরিহার করা ও সত্য বলার বিষয়ে অনেক বেশি সতর্ক করেছেন। একটি হাদিসে তিনি ইরশাদ করেছেন, ‘তোমরা সত্যকে অবলম্বন করো। কারণ সত্যবাদিতা ভালো কাজে উপনীত করে। আর ভালো কাজ উপনীত করে জান্নাতে। মানুষ সত্য বলে ও সত্যবাদিতার অন্বেষায় থাকে। একপর্যায়ে সে আল্লাহর কাছে সত্যবাদী হিসেবে লিখিত হয়ে …

Read More »

ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন হেভিওয়েট চ্যাম্পিয়ন টাইসন ফিউরি

মুষ্টিযোদ্ধা টাইসন ফিউরি মনে হয় কখনো বিতর্ককে এড়াতে চান না। প্রায়ই খেলা থেকে অবসর গ্রহণের ঘোষণা এবং নিয়মিত টুইটারে এলোমেলো পোস্টের মাধ্যমে তার ভক্ত-অনুরাগীদের বিভ্রান্তিতে রাখতেই মনে হয় তার পছন্দ। সূত্র: মেইল অনলাইন কিন্তু তার সর্বশেষ পদক্ষেপকে অবশ্য সাহসী বলতেই হবে। ‘জিপসি সম্রাট’ খ্যাত সাবেক হেভিওয়েট চ্যাম্পিয়ন টাইসন ফিউরি খ্রিস্টান ধর্ম থেকে ইসলামে ধর্মান্তরিত হচ্ছেন বলে মনে করা হচ্ছে। তীব্র খ্রিস্টান অনুরাগী এই খেলোয়াড় চলতি সপ্তাহে এই টুইটে জানান, তিনি তার নাম পরিবর্তন করে ‘রিয়াজ টাইসন মুহাম্মদ’ রেখেছেন। মাথায় টুপিসহ কাপ্তান পোশাক পরিহিত একটি ছবিও আপলোড করেন। এছাড়াও প্রার্থনারত অবস্থায় একটি ভিডিও আপলোড করেছেন তিনি। তবে এ ব্যাপারে তার কোন …

Read More »

আল্লাহকে একান্ত পাওয়ার সাধনা

আল্লাহকে ডাকার কোনো ধরাবাধা সময় নেই। তাকে যখন যেখানে ডাকা হবে তাতেই তিনি সাড়া দেন। তবে কিছু কিছু মুহূর্ত এমন আছে যখন আল্লাহকে ডাকলে তিনি সেই ডাকে দ্রুত সাড়া দেন। দিনের তুলনায় রাতের বেলা আল্লাহ বান্দার বেশি কাছাকাছি আসেন। কারণ সারা পৃথিবী যখন ঘুমে বিভোর তখন কোনো বান্দা চুপি চুপি তার দরবারে হাজিরা দিলে তাতে সবচেয়ে বেশি খুশি হন স্রষ্টা। নবীদের থেকে শুরু করে যারাই আল্লাহর প্রিয় হয়েছেন তারা রাতের ইবাদতের মাধ্যমেই হয়েছেন। রাত যত গভীর হয় প্রিয় বান্দাদের সঙ্গে আল্লাহর সম্পর্ক তত গাঢ় হতে থাকে। রাতের প্রধান ইবাদত হলো তাহাজ্জুদের নামাজ। মধ্যরাতের পর এই নামাজ আদায় করতে হয়। এই …

Read More »

ছোট্র একটি শব্দ যা পাঠ করলে মাফ হয় এক হাজার গুনাহ!

মহান আল্লাহ তায়ালা শেষ নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর উম্মতগণের গুণাহ মাফের জন্য হাজারো রাস্তা খুলে রেখেছেন।তার মধ্যে এমন কিছু ছোট ছোট আমল আল্লাহ পাক তার বান্দাদের জন্য নিয়ামত হিসেবে দিয়েছেন, যা পাঠ করলে অনেক সওয়াবের ভাগিদার হওয়া যায়। গুনাহ মাফের তেমনই একটি আমল মুসলিম শরীফে বর্নিত আছে। হাদিসটি হলো- যে ব্যক্তি প্রতিদিন ১০০ বার ‘সুবহানাল্লাহ’ পাঠ করবে তার ১০০০ সাওয়াব লিখা হবে এবং তার সাথে ১০০০ গুনাহ মাফ করা হবে। [সহীহ মুসলিম-৪/২০৭৩]

Read More »

নামাজের বৈজ্ঞানিক উপকারীতাসমূহ জেনে নিন

নামাজের বৈজ্ঞানিক উপকারীতাসমূহ জেনে নিন! ১) নামাজে যখন সিজদা করা হয় তখন আমাদের মস্তিস্কে রক্ত দ্রুত প্রবাহিত হয়। ফলে আমাদের স্মৃতি শক্তি অনেক বৃদ্ধি পায়। ২) আমরা যখন নামাজে দাঁড়াই তখন আমাদের চোখ যায় নামাজের সামনের ঠিক একটি কেন্দ্রে বা সিজদাহর জায়গায় স্থির অবস্থানে থাকে, ফলে মনোযোগ বৃদ্ধি পায়। ৩) নামাজের মাধ্যমে আমাদের শরীরের একটি ব্যায়াম সাধিত হয়। এটি এমন একটি ব্যায়াম যা ছোট বড় সবাই করতে পারে। ৪) নামাজের মাধ্যমে আমাদের মনের অসাধারন পরিবর্তন আসে। ৫) নামাজ মানুষের দেহের কাঠামো বজায় রাখে। ফলে শারীরিক বিকলাঙ্গতা লোপ পায়। ৬) নামাজ মানুষের ত্বক পরিষ্কার রাখে। যেমন, ওজুর সময় আমাদের দেহের মূল্যবান …

Read More »

পত্রিকায় বেগানা নারীদের ছবি দেখলে পাপ হবে? এ ব্যাপারে কি বলছে ইসলাম?

পত্র-পত্রিকা কিংবা ম্যাগাজিনে হারহামেশাই আমরা অপরিচিত বেগানা নারীদের ছবি সংবলিত নিউজ পড়ে থাকি। আসলে সেটা কি আমাদের জন্য দোষের কিংবা পাপের? প্রথমে জানতে হবে যে বেগানা বলতে আসলে কি বুঝানো হয়েছে? বেগানা মানে হলো- যে নারীর সাথে পর্দা করা ফরজ, পর্দাহীনভাবে যে নারীকে দেখার অনুমতি ইসলামি শরীয়ত প্রদান করে না। এমন নারীকে বেগানা বলা হয়। বেগানা নারীদের সরাসরি দেখা যেমন না জায়েজ ঠিক তেমনই ভাবে তাদের ফটো দেখাও না জায়েজ ও হারাম। তাই বেগানা মেয়েদের ফটো দেখা কোনভাবেই জায়েয না। [হেদায়া: ৪-৪৫৮]

Read More »

যে ধরনের ছেলের সাথে মেয়েকে বিয়ে দিতে বলেছেন হযরত মুহাম্মদ (সা.)

মেয়েদের বিয়ের বিষয়ে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) কড়া নির্দেষনা দিয়েছেন।কোন ধরণের পাত্রের সাথে আপনি আপনার মেয়েকে বিয়ে দেবেন এ সম্পর্কে নবীজী (সা.) নির্দেশনা দিয়েছেন। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত আছে, রাসুল (সা.) বলেছেন, তোমাদের নিকট যদি এমন ব্যক্তি বিবাহের পয়গাম দেয়, যার দ্বীনদারী এবং চরিত্র সুন্দর হওয়া সম্পর্কে তোমরা নিশ্চিত, তার নিকট তোমাদের মেয়েদের বিবাহ দাও। এমতাবস্হায় যদি তোমরা বিবাহ না দাও, তবে দুনিয়াতে বড় ফিতনা বা ফাসাদ নেমে আসবে।(তিরমিজি শরীফ)। এ হাদিস দ্বারা বুঝা যাচ্ছে যে, পাত্রকে অবশ্যই দ্বীনদার হতে হবে। নতুবা কোন মেয়ের জন্য তাকে স্বামী হিসাবে গ্রহন করা বা তার নিকট মেয়ে বিবাহ দেয়া বিপদ জনক।

Read More »

শয়তান থেকে আত্মরক্ষার দশটি উপায়

শয়তান আল্লাহকে ওয়াদা করেছিল মানুষকে জাহান্নামে নেয়ার জন্য কুমন্ত্রণা দিবে । কিন্তু পরম দয়ালু আল্লাহ তাঁর বান্দাদের ওই শয়তানের কুমন্ত্রণা থেকে রক্ষার জন্য কিছু দোয়া শিখিয়ে দিয়েছেন। আজকাল অনেকেই পাপ কাজ করে হাঁসি মুখেই বলতে শুনা যায় “আজ আমাকে শয়তানে পাইছে”। পরবর্তীতে দেখা যায় সেই একই কাজ আবার করে।আসলে অন্তরের অন্তঃস্থল থেকে অনুশোচনা না হওয়ার কারনেই এমন হয়। আল্লাহ ক্ষমাশীল তাই বলে একই অপরাধ বার বার করলে তিনি ক্ষমা করবেন? ইচ্ছা করে আল্লাহর আদেশ অমান্য করে ক্ষমা চেয়ে আবার সেই একই অপরাধ করে ক্ষমা চাওয়া তাঁর সাথে মশকরা ছাড়া আর কি? যাই হোক শয়তানের কুমন্ত্রণার কারনেই অনেক অপরাধ সংঘটিত হয়। …

Read More »

মুসলমানদের বিয়ে হালাল হয় না যে ৪টি শর্ত না মানলে

মুসলমানদের বিয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ আমল। তবে বিয়ের কিছু নিয়ম কানুন রয়েছে। মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) বলেছেন মুসলমানদের বিয়েতে অন্তত চারটি শর্ত যদি কেউ না মানে, তাহলে ওই বিয়ে কখনো হালাল হয় না। তাই মুসলমান হিসেবে সেই চারটি শর্ত নিচের আলোচনা থেকে এখনই জেনে নিন। ৪টি শর্ত: (১) ইশারা করে দেখিয়ে দেয়া কিংবা নামোল্লেখ করে সনাক্ত করা অথবা গুণাবলী উল্লেখ অথবা অন্য কোন মাধ্যমে বর-কনে উভয়কে সুনির্দিষ্ট করে নেয়া। (২) বর-কনে প্রত্যেকে একে অপরের প্রতি সন্তুষ্ট হওয়া। এর দলীল হচ্ছে নবী (সা.) বলেছেন, “স্বামীহারা নারী (বিধবা অথবা তালাকপ্রাপ্তা) কে তার সিদ্ধান্ত জানা ছাড়া (অর্থাৎ সিদ্ধান্ত তার কাছ থেকে চাওয়া হবে এবং …

Read More »